Monday, April 9, 2007

কবিতা : আমি, তুমি, আঁধার, ব্রিজের ওপর

ব্রিজের ওপর দাঁড়িয়ে রয়েছি ঠায়
বৃষ্টি ঝরছে ঝুমঝুম নির্জন
ভাবছি তুমি এসেই পড়বে 'ক্ষণ
আসবে কখন তোমার প্রতীক্ষায়

তুমি কি আমায় নিয়ে যাবে বহুদূর
দূরের সে পথ চলে গেছে নদীমাঝে
নেবে কি আমায় একটু আপন করে
ব্রিজের ওপর একাকী অন্ধকার

তুমি বা তোমরা কে দেবে আমায় ঠাঁই
খুঁজে খুঁজে ফিরি পরিচিত কোনো মুখ
সময়ের স্রোতে অনুভূতি গেছে ভেসে
ঝাপসা চোখেতে বৃষ্টি আঁধার কালো

আমি তো জানি না তুমি ও তোমার নাম
তবুও তোমার সাথেই থাকবো আমি
নিয়ে যাও তুমি একটু কোথাও দূরে
গভীর এ রাত জীবনের মানে খোঁজে

চারপাশ কেন দ্বিধা-সংকোচে ভরা
এলোমেলো সব একাকীত্বের ভয়
তুমি মিশে যাও তুমি ও তোমার ভীড়ে
হয়তো আমিই তোমাদের কেউ নই

- ইশতিয়াক জিকো / ঢাকা/ 9 এপ্রিল 2007
________________________________
নোট # 4 : আরেকটু হলেই হয়ে যেত I'm with you গানের অনুবাদ। হয়নি। অথবা পারিনি। গানের কথা ভেঙেচুরে ষণমাত্রিক ছন্দে ঝুলছে এ কবিতা।

নোট # 2 : সংযুক্ত ছবিটা ফটোশপের ক্যানভাসে ব্রাশ দিয়ে ধর্ষণ করার ফসল। আজকের ঘটনা ।

নোট # 1 : আমি-তুমিওলা কবিতা পাঠে মজা নেই। এক রকম ক্লান্তিবোধ আসে। আমিতুমি ছাপিয়ে উঠে আসুক ব্রিজ, নিঃসঙ্গতা, গভীর রাত, জীবনের মানে।

নোট # 3 : কবিতাটা প্রথম লিখেছি 7 এপ্রিল। শব্দ-বাক্য পালটে নগর-সংস্করণ বের করলাম। 9 এপ্রিল।

1 comment:

:) said...

কবিতাটা দাদরা তালে পড়ুন।

ধা ধিন না / না তিন না

ষণমাত্রিক ছন্দ এটাই, সংক্ষেপে। ছয় মাত্রার স্পন্দন।

যা বলছিলাম, এ ষণমাত্রিক ছন্দ পড়ে মাত্রাবৃত্ত জাতির মধ্যে। মাত্রাবৃত্ত ছাড়া আছে অক্ষরবৃত্ত আর স্বরবৃত্ত। একটু কেশে নিই।

যা বলছিলাম, মাত্রাবৃত্তে মুক্তাক্ষর সবসময় এক মাত্রার। রুদ্ধাক্ষর দুই মাত্রার।

এখানে 'অক্ষর' মানে syllable। অক্ষরের শেষে শুদ্ধ স্বরধ্বনি থাকলে সেটা মুক্তাক্ষর। অক্ষরের শেষে ব্যঞ্জনধ্বনি বা যৌগিক স্বরধ্বনি থাকলে তা রুদ্ধাক্ষর।আবার একটু কাশতে দিন।

হ্যা, শুদ্ধ স্বরধ্বনি মানে হলো : অ আ ই উ এ ও অ্যা।

বেশ লেকচার দেয়া হলো। এবার গেলাম। আপনারা ঝুলতে থাকুন।

Post a Comment